BIPC Conference 14- প্রস্তুতির কথা ( পর্ব-২)

facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

প্রথম পর্বে লিখেছিলাম কনফারেন্স আয়োজনের গোড়াঁর কথা । পড়রে এখানে ক্লিক করুন। আজ লিখবো প্রস্তুতির কথা। এই পর্বে আমরা অনেক কিছুই শিখেছি। আজকের লেখায় সংক্ষেপে কিছুটা ধারনা দেয়ার চেস্টা করবে।

প্রয়োজনীয় সংখ্যক দজ্ঞ ও অভিজ্ঞ অর্গানাইজারের অভাব ছিলো ঃ 

কনফারেন্স করবো এই কথাটি যখন উত্থাপন করি নেটওয়ার্কিং নাইটে সবাই বেশ আগ্রহ দেখালো। আগে কখনও এই ধরনের প্রোগ্রাম না করলেও আত্ববিশ্বাসী ছিলাম এই ধরনের প্রোগ্রাম আমরা করতে পারব। এই বিশ্বাসের মূল কারন ছিলো,প্রোগ্রামটি মুলত তাদের জন্য যারাই এই প্রোগ্রামের উদ্যোগ নিচ্ছে। এত বড় একটা কমিউনিটি তাই কোন কাজেই আটকে থাকার কথা না। সবাই যার যারা যায়গা থেকে কিছু কিছু কাজ করলেই প্রোগ্রাম সফল ভাবে করা সম্ভব।

ছোট ছোট করে আমরা এগুচ্ছিলাম। অনেক বার অনেক গুলো বৈঠক হলো। অনেক গুলো কমিটি করা হলো। সত্যি কথা বলতে আমরা যে ধরনের রেসপন্স আশা করছিলাম সেই রকম হচ্ছিলো না। অনেকেই সময় করতে পারছে না তাই মিটিং গুলোতে আসতে ছিলো না । আবার অনেকে এসেছে যারা আবার কাজ করতে খুব আগ্রহী কিন্তু কি করতে হবে বুঝতেছেনা । এই বুঝতেছেনার সংখ্যাই বেশি। তাদের এক্টিভ করতে হলে সব সময় গাইড করেই করাতে হতো।

10644303_339663372872915_4981324363620248977_o

আমরা যারা অনলাইনে কাজ করি এদের একজনের কাজের সময় একেক রকম। কেউ যখন ঘুমায় অন্যরা তখন কাজ করে। আবার কেউই এক অফিসে থেকে কাজ করছে না। তাই যারা কাজ বুঝতেছেনা তাদের পাশাপাশি রেখে কাজ করানো যাচ্ছিলো না। এছাড়া মেজর যেই কাজ গুলো -প্লানিং,স্পনসর,সাইট ডিজাইন, কনটেন্ট প্লানিং,সাইটের প্রোমোশন ও প্রোগ্রামের প্রচার প্রচারণায় কাজ করতে হলে এক সাথে বসে কাজ করতে হবে। অন্যথায় দুই একজনকেই এই কাজ গুলোকে এগিয়ে নিতে হতো। আস্তে আস্তে আমাদের সাথে যারা কাজ করতে চাচ্ছিলো তাদের সংখ্যা কমতে থাকলো। এতে অনেক গুলো সমস্যা হচ্ছিলো। আমার মতে প্রোগ্রামের যে যে যায়গা গুলোতে আমরা ভালো করিনি তার অন্যতম কারন হলো পর্যাপ্ত পরিমানে অভিজ্ঞ ও দক্ষ অর্গানাইজার না থাকা।

যা শিখালাম
এখানে আমি একটা বিষয় শিখেছি। যখন কোন কাজ আপনি করবেন আপনার দলের সবাই আর আপনিও সে বিষয়টিতে অনভিজ্ঞ তখন এই অনভিজ্ঞ সদস্য সংখ্যা যত কম হবে তত ভালো। কাজের উপর নিয়ন্ত্রন থাকে। এতে করে ভুলগুলো দ্রুত ঠিক করার সুযোগ থাকে। অন্যকে বুঝাতে গিয়ে সময় নস্ট হয় না।

প্রোগ্রামের আগের এক মাসঃ
মোটামুটি অনেক কিছুই আমরা একটু একটু করে এগুতে থাকলাম। আমরা এমন একটা জায়গায় আসলাম ডোমেইন রেজিস্ট্রেশন ও সাইট তৈরি না করে বাকী কাজ গুলো করা যাচ্ছিলো না। প্রথমে আমরা ঠিক করলাম BIPC.com.bd নিবো। সেই হিসাবে রেজিস্ট্রশনের জন্য প্রসেস শুরু করলাম। দ্বায়িত্বটা আরেকজনের ছিলো। উনার ব্যস্ততার কারনে পুরোপুরি বিষয়টা ফলোআপ করতে পারছিলো না। এছাড়া ডটবিডি ডোমেইন রেজিস্ট্রশন খুবই জামেলার। যাদের মাধ্যমের রেজিস্ট্রেশন করবে তারাও খুবই স্লো। আমরা ডোমেইন পাচ্ছিলাম না । প্রায় ১০ দিন অপেক্ষা করার পর BIPCconference.com ডোমেইনটা নিয়ে নিলাম।

10346456_793693907361219_4803244084267210681_n

ডোমেইনের পর দুইটা বড় কাজ ঃ এক -ডিজাইন । দুই- কনটেণ্ট প্লানিং ও লিখা । ডিজাইনের জন্য থিম এক্সপার্ট কাজ করছিলো। এখানেও কিছু বেশি সময় গেছে। প্রথমে যে ডিজাইনটি ব্যবহার করা হইছে সেটা আবার পরিবর্তন করতে হইছিলো । এছাড়া ঐ মাসে স্বাভাবিকের তুলনায় উনাদের ওয়ার্কলোড বেশি । তারপরও পারভেজ ভাই আর মাসুম সব সময় চেস্টা করেছে যখন যা দরকার তাই করতে। কনটেন্ট প্লানিং আমি করেছিলাম। লেখার কিছু কিছু ড্রাফট তৈরি বা আইডিয়া দেয়ার পর বাকি লেখালেখির কাজটা মোবারক ভাই করেছেন। যখনি কোন কাজ আমার , মোবারক ভাই , কামাল , প্রমি বা সুমনের মধ্যে ছিলো সেই গুলো সময় নিয়ে আমাদের সমস্যা হয় নি । প্রায় সপ্তাহ খানেক কাজ করে সাইটটি আমরা একটা সেইপে নিয়ে আসলাম। আর তখনি বলা যায় আমাদের কাজ দ্রুতই এগুতে থাকলো ।

এডেন্টিদের কাছে মেজেস পৌছাতে পারছি , স্পিকার ও গেস্টদের সাথে আলোচনা করার , স্পনসরদের এপ্রোচ করার ক্ষেত্র তৈরি হলো। গেস্টদের সাথে যোগাযোগ করার জন্য আমাদের অনেকের সাহায্য নিতে হয়েছে। তাদের মধ্য শামীম আহসান ভাই ( বেসিস প্রেসিডেন্ট  ) , রাসেল টি আহমেদ ভাই ( বেসিস সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট ), ফাহিম মাসরুর ভাই ( সিইও ,বিডিজবসডটকম ) উল্লেখযোগ্য। আমরা আসলে ভেন্যু ও তারিখ তখনো ফাইনাল করি  নাই । আমাদের ধারনা ছিলো গেস্টদের সাথে আলাপ করে ভেন্যু ঠিক করবো । রাসেল ভাই বললেন আসলে এভাবে না , আগে আপনাদের ভেন্যু ও তারিখ ঠিক করতে হবে । এক এক গেস্টের এক এক দিন সমস্যা থাকবে। আপনি যে তারিখে চাইবেন তাতে ভেন্যু নাও পেতে পারেন। সমস্যায় পরবেন । এরপরই আমরা তারিখ ও ভেন্যু চুড়ান্ত করি।

যা শিখালাম

  • ডটবিডি ডোমেইন রেজিস্ট্রশন করতে ২ সপ্তাহ হাতে রেখেই শুরু করা উচিত । কেউ কেউ ২ দিনেও করতে পারবে । তার জন্য লোক আর প্রয়োজনীয় ডকুমেন্ট আগেই জোগাড় করে রাখতে হবে ।
  • অন্য কারো উপর নির্ভর কাজ হলে আপনি কাজের যে প্লান করবেন তা ঠিক থাকবে না ।
  • সাইট যত তাড়াতাড়ি সমম্ভব তৈরি করে নিতে হবে ।
  • ভেন্যু ও তারিখ আগেই ঠিক করতে হবে । কমপক্ষে ২ মাস আগেই করা উচিত।
  • গেস্টদের সাথে যোগাযোগ ১ মাস আগেই করে ফেলতে হবে ।
  • অনেক গেস্টই পাওয়া যাবে না । পর্যাপ্ত সময় হাতে থাকলে অন্য গেস্টদের সাথে যোগাযোগ করার সুযোগ  থাকে ।

এর পরে লিখবো শেষ ৭ দিন , যে যায়গা গুলোতে আমরা খুব ভালো করিনি ও প্রাপ্তির কথা ।

facebooktwittergoogle_plusredditpinterestlinkedinmail

BIPC conference 2014 : পর্ব-১ ( পেছনের বা শুরুর কথা)

opening-session

অনেক আগে ২০১১ সালে আমরা একবার এই ধরনের প্রোগ্রাম করার উদ্যোগ নেই। অনেক মিটিং করেছি। প্রথম মিটিংটাই হয়েছিলো শামীম ভাইয়ের ( বেসিস প্রেসিডেন্ট ) এখুনি অফিসে। সবাই খুব উৎসাহী হলেও নানা কারনে আর সেই প্রোগ্রাম হয় নাই। এর পর ২০১৩ এর দিকে সম্ভবত একদিন মোবারক ভাই জানালেন তারা একটা কমিটি করতে কাজ করেছেন । কমিটির […]

Continue reading...

জুমশেপারের এফিলিয়েট প্রোগ্রাম – ৫০% কমিশন । পরোক্ষ ও প্রতক্ষ্য আরো কিছু বেনেফিট।

icon-affiliate-commission

যারা এফিলিয়েট মার্কেটিং করতে আগ্রহী বা যারা করে তাদের কাছে জুমশেপারের এফিলিয়েট প্রোগ্রাম খুবই আকর্ষনীয় হতে পারে। ৫০% কমিশন প্রত্যেকটি সেলে । মানিবুকার ( স্কিল) অথবা পেপল দিয়ে কমিশন নিতে পারছেন। যাদের ওয়েব ডিজাইন/ মেক মানি অনলাইন , এসইও, ইন্টারনেট মার্কেটিং ব্লগ আছে তারা খুব সহজেই এই প্রোগ্রামে অংশ গ্রহণ করতে পারেন।   জুমশেপার বাংলাদেশি […]

Continue reading...

BIPC Conference 2014 -প্রেস কনফারেন্স

bipcpressconference

আমার করা প্রথম প্রেস কনফারেন্স। এর আগে কখনো কোনো প্রেস কনফারেন্সেই উপস্থিত ছিলাম না। প্রেস কনফারেন্সের কোন অভিজ্ঞতাই ছিলো না। সেই দিক থেকে লিখার কথা কেমন লাগছিলো এতো সাংবাদিকের সামনে কথা বলার। কিছু না কিছু বিষয় থাকার কথা যা অনেক দিন কিংবা সব সময় মনে থাকবে। ঐ দিন যা ঘটেছিলো তা কারো প্রথম প্রেস কনফারেন্সে […]

Continue reading...

অনলাইন মার্কেটিং -ইনফ্লুয়েন্সারদের সাথে সম্পর্ক তৈরি ব্যবসাকে লাভজনক করার অন্যতম বড় নিয়ামক

bipc-banner

যাদের ব্যবসা আছে সেটা অনলাইন কিংবা অফলাইন হোক তাদের ব্যবসার প্রচারের জন্য অনলাইন মার্কেটিংয়ের গুরুত্ব সম্পর্কে নতুন করে বলার কিছু নাই। যারা অনলাইন মার্কেটিং নিয়ে কিছুটা পড়ালেখা করে আমি নিশ্চিত তারা বিভিন্ন এক্সপার্ট থেকে এই সাজেশন পান যে যে ইন্ড্রাট্রির ইনফ্লুয়েন্সাদের সাথে সম্পর্ক তৈরি করতে। এই ইনফ্লুয়েঞ্চার যখন ব্লগ লিখে , সোশ্যাল মিডিয়াতে আলোচনা করে […]

Continue reading...

গুগলের নতুন আপডেট- পিবিএন ডিইন্ডেস্কিং শুরু হয়েছে

পেঙ্গইন আপডেট মুলত ছিলো সাইটের ব্যাকলিঙ্ক ভিত্তিক। র‍্যাঙ্কিংয়ের উদ্দ্যেশে স্বপ্রনোদিত হয়ে বিশাল সংখ্যায় লিঙ্ক তৈরি করা গুগলের দৃস্টিতে তাদের কোয়ালিটি গাইডলাইন ভায়োলেশন। যে সমস্থ সাইট বিভিন্ন ইরিলেভেণ্ট উৎস থেকে লিঙ্ক তৈরি করেছে তাদের পেনাল্টি দেয়াই ছিলো পেইঙ্গুইন আপডেটের লক্ষ্য। অনেক সাইটই এই পেনাল্টিতে পড়েছে , র‍্যাঙ্ক হারিয়েছে আর রাতারাতি সব আয় হারিয়েছে। পেঙ্গইন আপডেটের আগে […]

Continue reading...

এফিলিয়েট সাইট তৈরির সাম্ভাব্য খরচের খাতের ব্রেকডাউন

ধরে নিচ্ছি আপনি নিজের একটি সাইটি তৈরি করবেন । আপনি জানতে চাচ্ছেন আপনার কেমন খরচ লাগতে পারে। সাম্ভাব্য কিছু খাতে আপনার খরচ কেমন লাগতে পারে তার একটা ধারনা দেয়ার চেস্টা করছি । এই খাত গুলোর অনেক গুলো আপনার ক্ষেত্রে প্রযোজ্য নাও হতে পারে । আবার অনেক এডভ্যান্স খরচ আছে যা আমি উল্ল্যেখ করিনি । এফিলিয়েট […]

Continue reading...

আমাজন প্রোডাক্ট রিভিও সাইটে নতুন কৌশল প্রয়োগে আয় বেড়েছে ৩৪%

দীর্ঘদিন পর আমি আবারো আমাজন ভিত্তিক এফিলিয়েট সাইট গুলো নিয়ে কাজ করছি। আমি আসলে কখনই নিজে সাইট তৈরি ও ব্যবস্থাপনা করি না। সব কিছুই আমার টিম করে থাকে। আগে যা করছিলাম তার চেয়ে ভালো কিছু করার জন্য একটা প্রজেক্ট হাতে নিয়েছি। সেই প্রজেক্টের জন্য পেসিভ ইঙ্কাম করতে পারে এমন সাইট তৈরি করার নিজস্ব একটা প্রসেস […]

Continue reading...

ইন্টারনেট প্রফেশনাল নেটওয়ার্কিং নাইট ( ২৯ আগস্ট, ২০১৪)

1375224_681836998573467_4475785151728913547_n

একেবারে আকষ্মিক ভাবেই এই ইভেন্টের আয়োজন হয়েছে । ঢাকায় স্টার্টআপকাপ কম্পিটিশনের মেনটরিং করার জন্য আমার ঢাকায় যেতে হচ্ছিলো। মুবারক ভাই ও নিলাভ ভাইয়ের সাথে আলাপটা শুরু হয়। প্রস্তাবটা ছিলো রাতে এক সাথে ডিনার করবো। পরে ভাবলাম অন্যদেরও বলি। ফেসবুকে স্টাটাস দিয়ে দেখলাম কেউ আগ্রহী কিনা। সাথে সাথে অনেকেই জানালো তারাও আসতে চায়। মোবারক ভাই একটা […]

Continue reading...

স্ট্রাটআপ কাপ বাংলাদেশ মেন্টোরিং ( ২৮ এপ্রিল ২০১৪)

startupcup1

স্ট্রাটআপ কাপ বাংলাদেশ ২০১৪ এর চার ফাইনালিস্টের মেনটরিংয়ের জন্য আমন্ত্রিত হয়ে যাই । আয়োজনটি ছিলো চমৎকার। যে চারটি প্রজেক্ট ফাইনালের জন্য বিবেচিত ছিলো সবগুলোই ইউনিক আইডিয়া নিয়ে। চারটি পিচই শুনে ভালো লাগলো। কিছু কিছু বিষয়ে প্রশ্ন করেছিলাম। কিছু মতামতও দেই। মাশরুম নিয়ে প্রজেক্টটি আমার কাছে বেশ ইণ্টারেস্টিং মনে হয়েছে। কারণ এই প্রজেক্টটি ইণ্টারনেট ব্যবহার করে […]

Continue reading...